ছিল বেড়াল, হয়ে গেল রুমাল! বিষয়টি প্রায় তাই-ই। ছিল পুরুষ, হয়ে গেল নারী, তা-ও একেবারে অন্তঃসত্ত্বা!

এক প্রাচীন মমি (ancient Egyptian mummy) পরীক্ষা করে পোলিশ গবেষকেরা বলেছিলেন, এটি সম্ভবত কোনও পুরুষ পুরোহিতের (male priest) মমি।

কিন্তু এটির এক্স-রে এবং কম্পিউটার পরীক্ষার পরে সম্প্রতি বিজ্ঞানীদের আশ্চর্য হওয়ার পালা। তাঁরা দেখেন, এটি সাত মাসের অন্তঃসত্ত্বা এক নারীর মমি! গবেষকেরা জানাচ্ছেন, এটিই হল বিশ্বের প্রথম কোনও অন্তঃসত্ত্বা মহিলার মমি।

জানা গিয়েছে, মমিটি ১৮২৬ সালে Warsaw পৌঁছেছিল। ওই কফিনটির উপরে খোদাই করা ছিল এক পুরোহিতের নাম। গবেষকদের তরফে নৃতত্ত্ববিদ ও প্রত্নতত্ত্ববিদ Marzena Ozarek-Szilke জানান, মমিটি পরীক্ষা করতে গিয়ে দেখি সেটির কোনও পুরুষাঙ্গ নেই! এদিকে স্তন আছে এবং লম্বা চুল। এবং তখনই আমরা আরও পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে নিশ্চিত হই, এটি কোনও মহিলার মমি। এবং তিনি অন্তঃসত্ত্বা!

তাঁদের অনুমান, ওই মিশরীয় নারীর বয়স ২০-৩০ বছরের মধ্যে। গর্ভস্থ শিশুর করোটি পরীক্ষা করে তাঁদের মনে হচ্ছে, এর বয়স ২৬-২৮ সপ্তাহের মতো।

Journal of Archaeological Science-য়ে এ সংক্রান্ত গবেষণাপত্রটি বেরিয়েছে। সেখানে বলা হয়েছে, এই মমিটি থেকে প্রাচীন মিশরে অন্তঃসত্ত্বা মহিলাদের কী ধরনের চিকিৎসা দেওয়া হত, তার একটা আন্দাজ পাওয়া যাবে।

 

 

 

 

 

 

জি নিউজ

প্রতিবেদনটি জনস্বার্থে প্রকাশ করা হলো

image_pdfimage_print