স্কি প্রতিযোগিতা। তাও সাঁতারের পোষাক পরে। হ্যা, এমনই মজার এক স্কি প্রতিযোগিতার আয়োজন করেছে রাশিয়ার এক রিসোর্ট। এই গ্রীষ্মেও বরফ দিয়ে কৃত্তিম ঢাল তৈরি করে তাতে স্কি করেছেন ক্রীড়াপ্রেমী কিছু পর্যটক। তাতে এই করোনার মাঝে কিছুটা হলেও বিনোদন পেয়েছেন তারা। এদিকে, যুক্তরাষ্ট্রে হয়ে গেলো ফেবারিট হটডগ খাওয়া প্রতিযোগিতা। যেখানে ১০ মিনিটে সাড়ে ৪৮ টি হটডগ খেয়ে নারী ইভেন্টে রেকর্ড গড়েছেন মিকি সুদো আর একই সময়ে ৭৫ টি হটডগ খেয়ে রেকর্ডের খাতায় নাম লিখিয়েছেন জোয়ে চেস্টনাট।

রাশিয়ার পশ্চিমে অবস্থিত কাহলিন্সক রিসোর্ট। বেশ কিছুদিন ধরেই করোনার কারণে পর্যটকদের আনা গোনা কম ছিলো রিসোর্টটিতে। তাই পর্যটকদের আকৃষ্ট করতে নতুন পদ্ধতি বেছে নিয়েছে তারা। এই ভরা গ্রীষ্মেও পর্যটকদের জন্য স্কি প্রতিযোগিতার আয়োজন করেছে রিসোর্ট কর্তৃপক্ষ। এদিকে, পর্যটকরাও হাপিয়ে উঠেছে ঘরে বসে থাকতে থাকতে। হাফ ছেড়ে বাঁচতে তারাও লুফে নিয়েছে এই সুযোগ। রিসোর্টে বেড়াতে গিয়ে মেতে উঠেছে স্কি খেলায়।

মজার ব্যাপার হলো যারা এই স্কি প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়েছেন তাদের সবার গায়ে ছিলো সাঁতারের পোষাক। কারণ ৩০ ড্রিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রায় অনুষ্ঠিত হয়েছে এই স্কি খেলা। তাই গায়ে ভারী পোষাক না থাকাটাই স্বাভাবিক।

দর্শনার্থীরা বলছেন, এটা একদমই ভিন্ন এক অভিজ্ঞতা। এত গরমের মাঝেও এভাবে স্কি করা সত্যিই দারুণ ব্যাপার। আমি খুবই মজা পেয়েছি।”

কৃত্রিমভাবে তৈরি করা হয়েছে বরফের এই ঢাল। গ্রীষ্মকাল বলেই বিকল্প উপায়ে রিসোর্ট কর্তৃপক্ষ তৈরি করেছে এই বরফের ঢাল।

দর্শনার্থীরা বলছেন, আমাদের এই বরফের ঢালে একটু বেশি পরিমাণ বরফ লেগেছে। যাতে সবাই এতে স্কি করার সযোগ পায়।”

”এই বরফের ঢাল মূলত তিনদিন পর্যন্ত থাকে। কিন্তু এত গরম পড়েছে। মনে হয় না তিনদিন পর্যন্ত যাবে।”

স্কি ছাড়াও পর্যটকদের জন্য সুইমিং এর আয়োজনও করেছে রিসোর্ট কর্তৃপক্ষ।

এদিকে, যুক্তরাষ্ট্রে আবারো হয়ে গেলো বিখ্যাত হটডগ খাওয়া প্রতিযোগিতা। যেখানে নারী ও পুরুষদের আলাদা দুটি ইভেন্টে অংশ নিয়েছে প্রতিযোগীরা।

১০ মিনিটে কে কয়টা হটডগ খেতে পারে মূলত প্রতিযোগিতা তাই নিয়ে। যে যত বেশি হটডগ খাবে। সেই হবে জয়ী। এবার নতুন রেকর্ড হয়েছে নারী-পুরুষ দুই ইভেন্টেই।

নারী ইভেন্টে ১০ মিনিটে সাড়ে ৪৮ টি হটডগ খেয়ে নতুন রেকর্ড গড়েছেন মিকি সুদো। পুরুষদের ইভেন্টে আরো তুলকালাম করেছেন ক্যালিফোর্নিয়ার জোয়ে চেস্টনাট। ১০ মিনিটে ৭৫ টি হটডগ খেয়ে রেকর্ডের খাতায় নাম লিখিয়েছেন জোয়ে।

 

 

 

 

 

 

সময় নিউজ

প্রতিবেদনটি জনস্বার্থে প্রকাশ করা হলো

image_pdfimage_print