মঙ্গলের মাটি ছুঁল নাসার ল্যান্ডার ও রোভার ‘পারসিভের‌্যান্স’। লাল গ্রহে প্রাণের খোঁজ করবে তারা। বৃহস্পতিবার রাত আড়াইটে নাগাদ অবতরণ করে মহাকাশযানটি।

বেশ কিছু বছর ধরে সেখানেই থাকবে মহাকাশযানটি। মাটি খুঁড়ে পাথর, জীবাশ্ম, মাটি সহ নানান নমুনা সংগ্রহ করবে সে। ২০৩০ সালে পৃথিবীতে আসবে মঙ্গলগ্রহের সেই সম্পদ।

প্রসঙ্গত, পৌঁছেই প্রথম ছবি পাঠিয়েছে রোভার। পৌঁছতে সময় লেগে গিয়েছে প্রায় ৭ মাস। প্রসঙ্গত, নাসার এই অভিযানে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকায় রয়েছে ভারতীয় স্বাতী মোহন।

প্যাসাডেনায় নাসার জেট প্রপালসন ল্যাবরেটরি থেকে নিরাপদে মঙ্গলে পৌঁছানোর বার্তা নিশ্চিত করেছেন বিজ্ঞানী স্বাতী মোহন। পাশাপাশি রয়েছেন, দুই বাঙালি বিজ্ঞানী- অনুভব দত্ত, সৌম্য দত্ত।

অবতরণের পর মঙ্গলের জেজেরো গহ্বর থেকে ‘পারসিভের‌্যান্স’একটি সাদা কালো ছবি তুলে পাঠিয়েছে। যা প্রকাশ্যে আনেন নাসার অ্যাসোসিয়েট অ্যাডমিনিস্ট্রেটর টমাস জুরবুচেন।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন ধন্যবাদ জানিয়ে টুইট করে বলেন, ‘কঠোর পরিশ্রম অধ্যবসায়ের ফলে ঐতিহাসিক অবতরণ সম্ভব হয়েছে। আজ আবারও প্রমাণিত হয়েছে যে বিজ্ঞান এবং আমেরিকার উদ্ভাবনী শক্তিকে কাজে লাগাতে পারলে কোনও কিছুই অসম্ভব নয়’।

 

 

 

 

জি নিউজ

প্রতিবেদনটি জনস্বার্থে প্রকাশ করা হলো

image_pdfimage_print