তিন ম্যাচের ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টি খেলতে মঙ্গলবার (২৩ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে নিউজিল্যান্ড রওনা হবে বাংলাদেশ জাতীয় দল। তার আগে করা তিন করোনা টেস্টেই নেগেটিভ এসেছেন সকল সদস্যরা। তবে, টেস্টের ফলাফল যাই হোক না কেন, ওশেনিয়াতে মানতে হবে নিউজিল্যান্ড স্বাস্থ্য বিভাগের প্রটোকল। জানিয়েছেন বিসিবির চিকিৎসক দেবাশিষ চৌধুরী।

এদিকে, নিউজিল্যান্ড সফর সবসময়ই আলাদা চ্যালেঞ্জ নিয়ে আসে ক্রিকেটারদের জন্য। সেখানে, এবার বাড়তি মাত্রা যোগ করেছে ৬ দিনের আইসোলেশন, মন্তব্য তাসকিনের আহমেদের।

বিসিবির চিকিৎসক দেবাশিষ চৌধুরী বলেন, ট্যুরের আগে নিউজিল্যান্ড বোর্ডের চাহিদা অনুযায়ী তিনবার করোনা টেস্ট করা হয়েছে। প্রত্যেকটিতেই সবাই নেগেটিভ হয়েছেন। আশা করি সেখানে গিয়েও কোন সমস্যা হবে না।

ট্যুরের আগে এ কথাগুলো অনেকটা স্বস্তি নিয়ে এসেছে বাংলাদেশের বহরে। কোভিড আক্রান্ত এ পৃথিবীতে এখনো অনেকটা স্বাভাবিক আছে নিউজিল্যান্ড। কিন্তু, এ অবস্থা বজায় রাখতে তাদের স্বাস্থ্য প্রটোকল মানার যে বাধ্যবাধকতা তারা করেছে, সেখান থেকে মাফ করা হয়নি কাউকেই। তাই তো, যাওয়ার আগেই এতো সব নিয়মকানুনের মারপ্যাঁচে তামিম-রিয়াদ বাহিনী।

তবে, যাওয়ার আগের টুকু জেনেই যদি আপনি অবাক হন, তাহলে বলছি আরো চমক আছে আপনাদের জন্য। এখানে রিপোর্ট যাই আসুক, তা নিয়ে খুব একটা মাথা ঘামাচ্ছে না কিউই কর্তৃপক্ষ। ওশেনিয়াতে পা দিতেই মানতে হবে তাদের আইনকানুন। আর তা হচ্ছে, হোটেলে ৬ দিন বন্দী জীবন যাপন করতে হবে টাইগারদের। এ ৬ দিন কপালে জুটবে না রুম সার্ভিসও। নিজেদের কাজ করতে হবে নিজেদেরকেই। মুক্ত বাতাস আর আলোর সঙ্গে দেখা হবে, তবে সেটাও ঘড়ি ধরে ঘন্টাখানেকের জন্য।

আর এই নিয়মগুলো মানতে পারলেই কেবল, জিম এবং অনুশীলনের অনুমতি পাবে বাংলাদেশ। তবে, দলবদ্ধ হয়ে তা করতে হলে অপেক্ষা করতে হবে অন্তত ১৪ দিন।

চিকিৎসক দেবাশিষ চৌধুরী বলেন, প্রথম ৬ দিন রুম থেকে বের হওয়া যাবে না। সার্ভিসও পাওয়া যাবে না। তবে, ধীরে ধীরে আমাদের আচরণ ভালো থাকলে তারা সুবিধা বাড়িয়ে দেবে। ৬ দিন পর থেকে হালকা জিম করা যাবে, সেটাও গ্রুপ হয়ে। এরপর সেই গ্রুপেই অনুশীলন শুরু করতে হবে। ১৪ দিন পর থেকে আমরাও স্বাভাবিক জীবন যাপন করতে পারবো।

ক্রিকেটাররা বায়ো বাবলে আছেন বেশ কয়েক মাস ধরেই। কিন্তু, এতোটা কঠোর নিয়মের সঙ্গে পরিচয় নেই তাদের কারোই। বিষয়টা তাই ভাবাচ্ছে তাসকিনকে। যদিও আশা, উৎরে যাবেন এ চ্যালেঞ্জটাকেও।

বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের খেলোয়াড় তাসকিন আহমেদ বলেন, আমরা বায়ো বাবলের সঙ্গে পরিচিত, তবে ওখানে যেভাবে শুনছি তা বেশ কঠিন হবে। তবে, ইনশাল্লাহ আমরা সব উৎরে যাবো। নিউজিল্যান্ডে খেলা এমনিতে অনেক কঠিন। ওদের এ কোয়ারেন্টিন চ্যালেঞ্জ আরো বাড়িয়ে দিলো।

বাতাসে গুঞ্জন বাংলাদেশের বিপক্ষে সিরিজে না’ও খেলতে পারেন নিউজিল্যান্ডের তারকা ক্রিকেটাররা। আইপিএলে যোগ দেয়ার উদ্দেশ্যে তাদেরকে ছুটি দিতে যাচ্ছে এনজেডএসএসি। তবে, সেটা নিয়ে না ভেবে নিজের পারফরম্যান্সে মনোযোগ দিতে চান তাসকিন।

 

 

 

 

সময় নিউজ

প্রতিবেদনটি জনস্বার্থে প্রকাশ করা হলো

image_pdfimage_print