সৈয়দপুরে ৩ দিনে ৩ জনের করোনা উপসর্গ নিয়ে মৃত্যু
সন্দেহজনক নমুনা প্রদানকারীরা ঘুরাঘুরি করছেন হাট বাজারে

[নীলফামারী জেলা প্রতিবেদক] নীলফামারীর সৈয়দপুরে করোনা উপসর্র্গ নিয়ে পর পর তিন দিনে ৩ জনের মৃত্যু হয়েছে। এর মধ্যে একজনের করোনা পজিটিভ রেজাল্ট এসে মৃৃত্যুর পরদিন। এছাড়া অনেকেই জ্বর-স্বর্র্দিসহ নানা সমস্যায় ভুগছেন। এতে করে করোনা নিয়ে সচেতন মহলের মাঝে সৈয়দপুরের ভবিষ্যত নিয়ে আশংকা দেখা দিয়েছে।

গত ১ জুন ৫ জনের করোনা পজেটিভ সনাক্ত হওয়ার পরও শহরজুড়ে মানুষের অবাধ চলাচল ও জমায়েত এবং সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করার ক্ষেত্রে অসচেতনতা ভাবিয়ে তুলেছে প্রশাসনসহ দায়িত্বশীল কর্র্তৃপক্ষকে। বিশেষ করে মাক্স ব্যবহারের ক্ষেত্রে চরম উদাসীনতায় আগত দিনগুলো আরও ভয়ংকর রূপে আবিভর্ূূৃত হওয়ার সমুুহ আশংকা রয়েছে।

সৈয়দপুরে এ পর্র্যন্ত ২৩ জনের করোনা সনাক্ত হয়েছে এবং ৩ জন উপসর্র্গ নিয়ে মারা গেছেন। মৃৃত্যু বরণকারী ৩ জনের মধ্যে শহরের নয়াটোলা মহল্লার স্বর্র্র্ণ ব্যবসায়ী সাইদুজ্জামান সাহিদের মৃৃত্যুর পরদিন করোনা পজিটিভ রেজাল্ট এসেছে। অন্যদের রেজাল্ট এখনও আসেনি। এরা হলো শহরের রাসূূলপুরের শাহানাজ নামে এক মহিলা। যিনি গত ২ জুন মঙ্গলবার মারা গেছেন এবং ৩ জুন বুধবার মারা গেছেন কুন্দল পূর্ব পাড়ার আব্দুল করিম ওরফে লালু।

এক্ষেত্রে সবচেয়ে বেশি ভীতির বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে উপসর্গ নিয়ে ভুুক্তভোগী ব্যক্তিগুলোর নমুনা সংগ্রহ সর্বত্মকভাবে হচ্ছেনা। যে কারণে সনাক্ত করার ক্ষেত্রে অপর্যাপ্ততার কারণে সঠিক তথ্য পাওয়া যাচ্ছেনা। পাশাপাশি যাদের নমুনা সংগ্রহ করা হচ্ছে তাদের টেস্ট রেজাল্ট আসতে বিলম্ব নিয়ে জনমনে মিশ্র প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি করছে।

এদিকে যাদের নমুনা সংগ্রহ করা হচ্ছে তাদের রেজাল্ট আসা পর্যন্ত তদারকির মধ্যে রাখার ক্ষেত্রে কর্র্তৃপক্ষের অবহেলার চিত্র উঠে আসছে। এজন্যই নমুনা প্রদানকারী সরকারী হাসপাতাালের স্বাস্থ্য কর্র্মচারী জাফর আলী পরিবার পরিজন নিয়ে সৈয়দপুর থেকে বগুড়ায় বাস যোগে পালিয়েছেন।

আরেকজন উপজেলার দক্ষিণ সোনাখুলির আদম আলী বাড়ি থেকে বের হয়ে অটো নিয়ে শহরে এসে বাজার করেছেন, দন্ত চিকিৎসকের কাছে গিয়ে দাঁত তুলেছেন, ব্যাংক থেকে টাকা তুলেছেন। পরবর্তীতে যাদের রেজাল্ট পজিটিভ এসেছে।

এভাবে সন্দেহজনক ব্যক্তিরা চরম অবিবেচকের মত হাট-বাজারসহ সর্বত্র ঘুরাঘুরি করে চলেছেন। এ নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তোলপাড় চললেও কঠোর কোন পদক্ষেপ নেই প্রশাসনের পক্ষ থেকে।

সৈয়দপুরে জেলা রেলওয়ে পুলিশের উদ্যোগে সুরক্ষা অভিযান

দীর্ঘ প্রায় আড়াই মাস বন্ধ থাকার পর উত্তরের জেলা নীলফামারী থেকে দক্ষিনের জেলা খুলনার মধ্যে ট্রেন চলাচল উদ্বোধন করা হয়েছে।

৩ জুন বুধবার সকালে সৈয়দপুর রেলওয়ে স্টেসন থেকে স্বাস্থ্যবিধি নিশ্চিত করে ওই পথে যাত্রীদের বিদায় জানানোর মাধ্যমে এর উদ্বোধন করেন সৈয়দপুর রেলওয়ে পুলিশ সুপার সিদ্দিকী তাঞ্জিলুর রহমান। এ সময় স্টেশন মাস্টার শওকত আলী, সহকারী স্টেশন মাস্টার আলমগীর হোসেনসহ রেলওয়ের অন্যান্য কর্মকর্তা ও সংবাদকর্র্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

চিলাহাটি-খুলনা রেলপথে চলাচলকারী আন্তঃনগর ট্রেন রুপসা সকাল সাড়ে ৮টায় খুলনার উদ্দেশ্যে ভারতীয় সীমান্ত সংলগ্ন স্টেসন চিলাহাটী থেকে ছাড়ার মধ্য দিয়ে করোনা প্রাদুর্র্ভাবের কারণে লকডাউন পরবর্র্তী দ্বিতীয় দফার কার্যক্রম উদ্বোধন করা হলো। রাত ৮টায় একই স্টেসন থেকে ঢাকার উদ্দেশ্যে ছেড়ে যাবে নীলসাগর এক্সপ্রেস ট্র্রেনটি।

সকাল সাড়ে ৯টায় সৈয়দপুর স্টেসনে রুপসা ট্রেনটি এসে দাঁড়ায়। এ সময় বাংলাদেশ রেলওয়ে সৈয়দপুর জেলা পুলিশ সুপার সিদ্দিকী তানজিলুর রহমান উপস্থিত থেকে যাত্রীদের সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার বিষয়টি নিশ্চিত করেন এবং মাক্স বিহীন যাত্রীদের মাঝে মাক্স বিতরণ করেন।

এসময় তিনি বলেন, সামাজিক দুরত্ব এবং রেলের নিয়ম-নীতি বজায় রেখে ট্র্রেন দুটি চলাচল করবে। ইতিমধ্যে অনলাইনে টিকিট বিক্রি করা হয়েছে। চিলাহাটি, ডোমার, নীলফামারী ও সৈয়দপুর স্টেসনে যাত্রীদের সামাজিক দুরত্ব বজায় রাখতে সব ধরনের প্রস্তুুতি নেয়া হয়েছে। ট্রেন দুটিতে খাবার গাড়ী সংযোগ থাকলেও সেখানে কোন খাবার থাকবে না। মাক্স ও টিকিট ছাড়া কোন যাত্রী ট্রেনে উঠতে পারবে না।

এছাড়া বিভিন্ন পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা হাত ধোয়ার স্থান স্প্র্রে সহ বিভিন্ন বিষয় তদারকি করেন এবং ট্রেন ছেড়ে যাওয়ার পর স্থানীয় সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময় করেন তিনি। সরকারি নির্দেশনার প্রতি সকলের সহযোগিতা কামনা করে তিনি বলেন, প্রতি ৩ সিটে ২ জন এবং ২ সিটে একজন করে যাত্রী পরিবহন করতে স্বাস্থ্যবিভাগের নির্দেশনা রয়েছে। সেই নির্দেশনা মানা হচ্ছে কিনা তা কঠোরভাবে পর্যবেক্ষন করা হচ্ছে। এ সময় যাত্রীদের তিনি সচেতন হবার আহবান ও মাস্ক ব্যবহারের অনুরোধ জানান।

আরমান নামের এক যাত্রী বলেন পারিবারিক বিশেষ প্রয়োজনে খুলনা যেতে হবে বলে ৫ দিন আগেই অনলাইনে টিকিট করেছি। ট্রেনের চিরাচেনা পরিবেশের পরিবর্তে একেবারে ভিন্ন দৃশ্য পরিলক্ষিত হয়। কাউন্টারে যেমন টিকিট কাটার ঝামেলা নেই, তেমনি নেই কোন ভিড়।

সহকারী স্টেশন মাস্টার আলমগীর হোসেন বলেন, সামাজিক দুরত্ব বজায় ওই স্টেশনের জন্য যতগুলো টিকিট বরাদ্ধ রয়েছে তার থেকে ২৫ টি অবিক্রিত রাখা হয়েছে। স্টেশন মাস্টার শওকত আলী বলেন, যাত্রীদের নিরাপত্তার কথা বিবেচনা কওে স্টেশনকে স্বাস্থ্যবিধি অনুসারে প্রস্তুত করা হয়েছে। এ জন্য স্টেশনসহ প্রতিটি বগিতে হাত ধোয়ার ব্যবস্থা রাখা হয়েছে।

জলঢাকায় খাদ্য গুদামে ধান ও চাল সংগ্রহ কার্যক্রম উদ্বোধন

নীলফামারীর জলঢাকা উপজেলা খাদ্য গুদামের আয়োজনে স্থানীয় এলএসডি অভ্যন্তরীণ বোরো ধান ও চাল সংগ্রহ কার্যক্রমের উদ্বোধন করা হয়েছে।

৩ জুন বুধবার সকালে স্থানীয় সংসদ সদস্য (নীলফামারী-৩) মেজর (অবঃ) রানা মোহাম্মদ সোহেল এর উদ্বোধন করেন।

এসময় উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা চেয়ারম্যান আব্দুল ওয়াহেদ বাহাদুর, উপজেলা নির্বাহি অফিসার মাহবুব হাসান, সহকারী কমিশনার ভূমি মহিউদ্দিন, কৃষি অফিসার শাহ্ মোহাম্মদ মাহফুজুল হক, উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক জগদীশ চন্দ্র সরকার, জলঢাকা থানার অফিসার ইনচার্জ মোস্তাফিজুর রহমান, মিল মালিক সমিতির সভাপতি ইলিয়াস হোসেন বাবলু ও উপজেলা খাদ্য গুদাম কর্মকর্তা সুলতানুল ইসলাম সুমন প্রমুখ।

সৈয়দপুর উপজেলা সহকারী কমিশনার পরিমল সরকারের
পদোন্নতি জনিত বিদায় ও নবাগত রমিজ উদ্দিনকে বরণ

নীলফামারীর সৈয়দপুর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) পরিমল কুমার সরকারের পদোন্নতির কারণে বিদায় সংবর্ধনা প্রদান এবং নবাগত এসিল্যান্ড রমিজ উদ্দিনকে বরণ করেছেন উপজেলা প্রশাসন। ৩ জুন বুধবার সকালে উপজেলা পরিষদ অফিসার্র্স ক্লাবে এ উপলক্ষ্যে অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

এতে উপস্থিত থেকে বিদায়ী ও স্বাগতিক দু’জনকে ফুলের তোড়া দিয়ে শুভেচ্ছা জানান উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মোখছেদুল মোমিন, উপজেলা নির্র্বাহী অফিসার মোঃ নাসিদ আহমেদ, মিসেস পরিমল কুমার, ভাইস চেয়ারম্যান আজমল হোসেন সরকার, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান সানজিদা বেগম লাকীসহ উপজেলা প্রশাসনের কর্মকর্তা-কর্মচারী তথা অফিসার্স ক্লাবের সদস্যবৃন্দ।

উল্লেখ্য, বিগত ২০১৭ সালের অক্টোবরে পরিমল কুমার সরকার সৈয়দপুরে যোগদান করেন। এরপর সৈয়দপুরের ইতিহাসে যুগান্তকারী অসংখ্য কার্যক্রম পরিচালনা করেন। বিশেষ করে বোতলাগাড়ী ইউনিয়নে সরকারী খাস জমি উদ্ধার করে সেখানে আশ্রয়ন প্রকল্প প্রতিষ্ঠা, সৈয়দপুর বিমানবন্দর আন্তর্জাতিককরণে ভূমি অধিগ্রহণ কার্যক্রমের মাঠ পর্যায়ে জরিপ কার্যক্রম অত্যন্ত দায়িত্বশীলতার সাথে এবং যথাযথভাবে সম্পাদন করা।

তিনি গত ৭ মে উপজেলা নির্র্বাহী অফিসার পদে পদোন্নতি পেয়েছেন। সৈয়দপুর থেকে তিনি দিনাজপুরের বিরামপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার হিসেবে যোগদান করবেন।

এদিকে নবাগত সহকারী কমিশনার (ভূমি) হিসেবে পরিমল সরকারের স্থলাভিষিক্ত হয়েছেন রমিজ উদ্দিন। তিনি ইতোপূর্বে দিনাজপুর সদরের উপজেলা সহকারী কমিশনার হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন।

উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে
প্রতিবন্ধিদের মাঝে হুইল চেয়ার প্রদান

নীলফামারীর সৈয়দপুর উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে প্রতিবন্ধিদের মাঝে হুইল চেয়ার প্রদান করা হয়েছে। ৩ জুন বুধবার সকালে উপজেলা পরিষদ চত্বরে উপজেলার বিভিন্ন এলাকা থেকে বাছাইকৃত ৫ জন প্রতিবন্ধিকে হুইল চেয়ার প্রদানকালে উপস্থিত ছিলেন, সৈয়দপুর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মোখছেদুল মোমিন, উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ নাসিম আহমেদ, ভাইস চেয়ারম্যান আজমল হোসেন সরকার, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান সানজিদা বেগম লাকী, সমাজসেবা অফিসার হাওয়া খাতুন প্রমুখ।

 ১২ বছরের কন্যা শিশুর ঝুলন্ত মৃতদেহ উদ্ধার

নীলফামারীর সৈয়দপুরে টুনটুনি দাস নামে ১২ বছর বয়সী একটি মেয়ে শিশুর ঝুলন্ত মৃতদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। ৩ জুন বুধবার বিকাল ৫ টায় শহরের হাতিখানা এলাকায় এ ঘটনা ঘটেছে। হত্যা না আত্মহত্যা এ নিয়ে ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়ে। পরিবারের লোকজন ঘটনাটি নিয়ে কোন মন্তব্য না করলেও রহস্যজনক বলে এলাকাবাসী মিশ্র প্রতিক্রিয়া ব্যাক্ত করেছে।

মৃত শিশুটির বাবা শ্রী সংকর দাস ধোপা বলেন, দুপুরে খাওয়ার পর টুনটুনিসহ বড় মেয়ে ও ছেলে এবং আমরা স্বামী-স্ত্রী সবাই ঘরে ঘুমিয়ে পড়ি। বিকাল সাড়ে ৪ টার দিকে ঘুম থেকে উঠে ঘরের বাহিরে বের হতেই দেখি বারান্দায় চালের বাঁশের পাড়ের সাথে টুনটুনি ঝুলছে। সাথে সাথে চিৎকার করি এবং কাছে গিয়ে দেখতে পাই গলায় ওড়না পেঁচানো রয়েছে। পরিবারের সবাই মিলে দ্রুত টুনটুনিকে ঝুলন্ত অবস্থা থেকে নামালেও তাকে মৃত পাই। পরে পুলিশকে খবর দেই। মেয়ে আত্মহত্যা করেছে না তাকে কেউ মেরে ফেলেছে তা আমরা বলতে পারছিনা। আত্মহত্যারও কোন কারন ঘটেনি আবার তাকে কেউ কেন হত্যা করবে সে বিষয়েও কিছু ভাবতে পারছিনা।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সৈয়দপুর সার্কেল) অশোক কুমার পাল খবর পাওয়া মাত্র ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে বিষয়টির প্রাথমিক তদন্ত করেছেন। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত পুলিশসহ তিনি সেখানে অবস্থান করছেন।

সৈয়দপুর থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ আবুল হাসনাত খান জানান, সুরতহাল রিপোর্ট করা হয়েছে। পরিবারের পক্ষ থেকে অভিযোগ পেলে লাশ ময়না তদন্তের জন্য মর্গে প্রেরণ করা হবে। তদন্ত রিপোর্ট আসলেই ঘটনাটি হত্যা না আত্মহত্যা তা নিরূপণ হবে। আর অভিযোগ না থাকলে ইউডি মামলা করা হবে।

সৈয়দপুরে ওষুধ ব্যবসায়ীসহ ৩ পুলিশ সদস্য নতুন করে করোনা পজিটিভ

নীলফামারীর সৈয়দপুরে একজন ওষুধ ব্যবসায়ীসহ ৩ পুলিশ সদস্য নতুন করে করোনা পজিটিভ সনাক্ত হয়েছেন। ৩ জুন বুধবার সন্ধায় দিনাজপুর আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ থেকে প্রাপ্ত রেজাল্টে এ তথ্য পাওয়া গেছে। সৈয়দপুর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কার্যালয়ের সিনিয়র চিকিৎসক ডাঃ আরমান হোসেন রনি বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, গত ৩০ মে সৈয়দপুর উপজেলার ১২ জনের নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছিল। যাদের মধ্যে ৪ জনের পজিটিভ আর ৮ জনের নেগেটিভ পাওয়া গেছে। পজিটিভ সনাক্ত ব্যক্তিরা হলেন- সৈয়দপুর তথা উত্তরবঙ্গের বৃহত্তম বাণিজ্য কেন্দ্র সৈয়দপুর প্লাজা সুপার মার্কেটের নোভা ড্র্রাগস হাউজ এর স্বত্বাধিকারী জাহানুর আলম, সৈয়দপুর থানার এসআই লক্ষ্মী নারায়ন, সৈয়দপুুর রেলওয়ে পুলিশ (জিআরপি) সদস্য আরিফুজ্জামান মিলন ও আলতাব মাহমুদ।

এর মধ্যে এসআই লক্ষ্মী নারায়ন অসুস্থ বোধ করার পরই গত ২৮ মে নিজ উদ্যোগে সৈয়দপুর ১০০ শয্যা হাসপাতালে গেলে তাকে সেদিনই আইসোলেশনে নেয়া হয়েছে। অন্যদের আজ রাতেই আইসোলেশনে নেয়া হবে বলে জানান ডাঃ আরমান হোসেন রনি।

উল্লেখ্য, নতুন এই ৪ জনসহ সৈয়দপুর উপজেলায় মোট ২৭ জন করোনা আক্রান্ত বলে সনাক্ত হয়েছেন। এছাড়া করোনা উপসর্গ নিয়ে ইতোমধ্যে ৩ জন মারা গেছেন। যাদের মধ্যে একজনের নমুনা পরীক্ষায় পজিটিভ এসেছে। অন্য দুইজনের নমুনা নেয়া হলেও এখন পর্যন্ত রেজাল্ট আসেনি।

 

 

 

 

 

 

image_pdfimage_print