নারায়ণগঞ্জের তল্লা বাইতুস সালাত জামে মসজিদে ভয়াবহ বিস্ফোরণের ঘটনার এগারো দিন পর স্থানীয়দের দাবির মুখে গ্যাসের অবৈধ সংযোগ বিচ্ছিন্ন অভিযানে নামে তিতাস কর্তৃপক্ষ। এসময় বেশকিছু অবৈধ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করা হয়। এদিকে মসজিদে বিস্ফোরণের ঘটনায় ১১ জনের সাক্ষ্য গ্রহণসহ আলামত সংগ্রহ করেছে সিআইডি।

মঙ্গলবার সকালে সদর উপজেলার সিদ্ধিরগঞ্জ আটি হাউজিং এলাকায় র‌্যাবের সহযোগিতায় অবৈধ সংযোগ বিচ্ছিন্নে অভিযানে নামে তিতাস কর্তৃপক্ষ। সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত ২শ ফুট অবৈধ গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে পাইপ উপড়ে ফেলা হয়। অভিযানের একপর্যায়ে গ্যাস লাইনে লিকেজ পাওয়া গেলে সেটাও মেরামত করে দেয়া হয়।

তিতাস গ্যাসের নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লা জোনের ব্যবস্থাপক প্রকৌশলী রবিউল ইসলাম, আমরা এখানে লিকেজ পেয়েছি কিন্তু এটা আমাদেরকে কেউ জানায়নি। এগুলো থেকে বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটে যেতে পারে।

র‌্যাব-১১ উপ-সহকারী পরিচালক মো: রবিউল ইসলাম বলেন, অবৈধ সংযোগ বন্ধে আমরাও সকল সময় নজর রাখি।

এদিকে, মসজিদে বিস্ফোরণের ঘটনা তদন্তে মসজিদ পরিচালনা কমিটির সভাপতি আবদুল গফুরসহ এগারো জনের সাক্ষ্য গ্রহণ করেছে সিআইডি পুলিশ। একই সঙ্গে দুর্ঘটনা কবলিত মসজিদটির ভেতর থেকে বিভিন্ন আলামত সংগ্রহ করেন আলামত সংগ্রহ করেছেন বলে জানান নারায়ণগঞ্জ সিআইডির মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ও পরিদর্শক বাবুল হোসেন।

গত ৪ সেপ্টেম্বর রাতে নারায়ণগঞ্জের তল্লা বাইতুস সালাত জামে মসজিদে এশা’র নামাজ চলাকালে তিতাসের লিকেজ থেকে বিস্ফোরণে ৩১ জন নিহত হন।

 

 

 

 

 

 

 

 

সময় নিউজ

প্রতিবেদনটি জনস্বার্থে প্রকাশ করা হলো

image_pdfimage_print