আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের এমপি বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ত্যাগী নেতা-কর্মীদের দলে জায়গা করে দেয়ার জন্যই শুদ্ধি অভিযান শুরু করেছেন।
তিনি বলেন, ‘আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা দলের মধ্যে শুদ্ধি অভিযান শুরু করেছেন। এ অভিযানের মাধ্যমে ত্যাগী নেতা-কর্মীরা দলে স্থান পাবে এবং হাইব্রিড নেতাদের দল থেকে বাদ দেয়া হবে।’
কাদের আরো বলেন, ক্ষমতা পেয়ে পকেট কমিটি বানানো যাবে না। আওয়ামী লীগ করতে হলে দলকে ভালবাসতে হবে এবং দলের তৃনমূলের নেতা-কর্মীদের ভালবাসতে হবে।
ওবায়দুল কাদের আজ সকালে জেলা শহরের শহীদ আলাউদ্দিন শিশুপার্কে পটুয়াখালী জেলা আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন।
জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এ্যাড. মো. শাহজাহান মিয়ার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সম্মেলনের উদ্বোধন করেন পার্বত্য শান্তি চুক্তি বাস্তবায়ন কমিটির আহবায়ক(মন্ত্রী পদ মর্যাদায়) আবুল হাসনাত আব্দুল্লাহ এমপি।
জেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক কাজী আলমগীরের পরিচালনায় অনুষ্ঠিত সম্মেলনে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল আলম হানিফ এমপি, আব্দুর রহমান, তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক এডভোকেট আফজাল হোসেন, আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক ড. শাম্মি আহম্মেদ, উপ-দপ্তর সম্পাদক ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়–য়া ও কেন্দ্রীয় কার্য নির্বাহী সংসদের সদস্য গোলাম রাব্বানী চিনু।
আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক কাদের বলেন, বঙ্গবন্ধুর কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাত ধরে বাংলাদেশ আজ বিশে^র দরবারে উন্নয়নের রোল মডেল। গত ৪৪ বছরের রাজনীতিতে বাংলাদেশের সেরা প্রধানমন্ত্রী ও দক্ষ সংগঠক, সেরা রাজনীতিবিদ, নিঃস্বার্থ রাজনীতিবিদ শেখ হাসিনা। শেখ হাসিনা বিশে^র সেরা দশ জন নেতাদের মধ্যে একজন। তিনি আরো বলেন, শুধু লাখ লাখ টাকা খরচ করে সম্মেলনের সময় ব্যানার ফেষ্টুন টানিয়ে নেতা হওয়া যায় না। ঢাকা মহানগর উত্তর-দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সম্মেলনে যারা ব্যানার ফেস্টুন দিয়ে এলাকা ভরেছে তারা পোষ্ট পায় নাই। তাই ব্যানার ফেষ্টুনে টাকা না খরচ করে দলের দুঃস্থ কর্মীদের পেছনে সে টাকা খরচ করলে ভালো হবে।

 

 

 

 

বাসস

প্রতিবেদনটি জনস্বার্থে প্রকাশ করা হলো

image_pdfimage_print