তামিল জাতি ভারতীয় রাজ্য তামিলনাড়ু ও শ্রীলঙ্কার উত্তর-পূর্বাঞ্চলে বসবাসকারী একটি জনগোষ্ঠী। এই জাতির মানুষেরা তামিল ভাষায় (তামিল: தமிழ்) কথা বলেন। তামিল জাতির ইতিহাস দুই হাজার বছরের প্রাচীন।সারা বিশ্বেই এই জাতির অভিবাসনকারী প্রবাসী সদস্যদের দেখা মেলে। তামিলরা মূলত হিন্দু ধর্মাবলম্বী। তবে এই জাতির একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ ইসলাম ও খ্রিষ্ট ধর্মাবলম্বী।

তামিল ভাষা ধ্রুপদি ভাষার মর্যাদা প্রাপ্ত প্রথম ভারতীয় ভাষা। দ্রাবিড় ভাষাগোষ্ঠী মধ্যে এই ভাষার সাহিত্যই প্রাচীনতম।তামিলদের শিল্প ও স্থাপত্যকলা ভারতীয় তথা দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার শিল্পকলার জগতে বিশেষ অবদান রেখেছে। তামিলদের প্রসিদ্ধ নটরাজ স্থাপত্য হিন্দুধর্মের একটি বিশ্বজনীন প্রতীক। প্রাচীন তামিল দেশে সৃষ্ট সংগীত ও মন্দির স্থাপত্য আজও অধীত ও অনুশীলিত হয়ে থাকে। এই কারণে তামিল সভ্যতাকে বিশ্বের সর্বশেষ বিদ্যমান ধ্রুপদি সভ্যতা বলা হয়।তামিল পল্লব সাম্রাজ্যে দক্ষিণী ব্রাহ্মীর অন্যতম রূপভেদ পল্লব লিপি ব্যবহৃত হত। এই লিপি বর্মি, খমের, থাই, লাও ও জাভা লিপির মতো দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার প্রাচীন বর্ণমালাগুলির উৎস।

ভৌগোলিক বিস্তৃতি
ভারতীয় তামিল

অধিকাংশ ভারতীয় তামিল বসবাস করেন তামিল নাড়ু রাজ্যে। প্রাক্তন ফরাসি ঊপনিবেশ, বর্তমানে কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল পুদুচেরিতে তামিলরাই সংখ্যাগুরু। আন্দামান এবং নিকোবার দ্বীপপুঞ্জের জনসংখ্যার কমপক্ষে এক-ষষ্ঠমাংশ তামিল।

ভারতের অন্যান্য অংশেও তামিল সম্প্রদায়ের বসতী রয়েছে। এদের অধিকাংশই সাম্প্রতিক, ঊপনিবেশিক এবং উত্তর-ঊপনিবেশিক আমলের, বিশেষ করে দক্ষিণ কর্নাটকের হেবার এবং মান্দিয়াম তামিল সম্প্রদায় (২৯ লাখ), পুনে, মহারাষ্ট্র (১৪ লাখ), অন্ধ্র প্রদেশ (১২ লাখ), কেরালার পালাক্কাদ (৬ লাখ) এবং দিল্লীর (১ লাখ) — অন্তত মধ্যযুগ থেকে চলে আসছে।

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

উইকিপিডিয়া

জনস্বার্থে প্রকাশ করা হলো

image_pdfimage_print