চাওয়া

তান তার দিদি সিতানকে বলছে, ‘দিদি, তুই সব সময় বাবার কাছে নিজের জন্য জিনিস চাস। আমার জন্য কিছুই চাস না।' সিতান: ওমা! কই, চাই তো! তান: কী চাস? সিতান: তোর খুব হ্যান্ডসাম আর বড়লোক একজন জামাইবাবু হোক!
অন্যদের বোঝানো বড় বোন : আচ্ছা, আমি যখন গান করি তখন তুই বারান্দায় গিয়ে দাঁড়িয়ে থাকিস কেন? ছোট বোন : আমি যে গান গাইছি না সেটা অন্যদের বোঝানোর জন্য।
দাদাঠাকুর শরৎচন্দ্ৰ পণ্ডিত বেতার পল্লীমঙ্গলের আসরে একবার অনুষ্ঠান করতে গেছেন। তাঁর বলা শেষ হয়েছে। কিন্তু পরের অনুষ্ঠান শুরু হতে দুমিনিট বাকি। কী করা যায়! বেতার ঘোষক ইশারায় তাকে দুটো আঙুল দেখিয়ে জানিয়ে দিলেন আরো দুমিনিট বাকি। বেতার ঘোষকের ইশারা...
মুর্শিদাবাদের ম্যাজিষ্ট্রেট এডিকের সংবর্ধনা সভায় নিমন্ত্রিত হয়ে এসেছেন দাদাঠাকুর শরৎচন্দ্ৰ পণ্ডিত। তার পরনে চির পরিচিত ধুতি-চাদর। দাদাঠাকুরকে দেখে একজন সাহেবিপনা ধনী ব্যক্তি বলে উঠলেন, এই ডার্টি লোকটা কে? দাদাঠাকুরের কানে গোল কথাটা। মুখে কিছু বললেন না। মনে মনে ভাবলেন, একে...
সিউড়ির লাটসাহেব রোনােন্ড্রসের সংবর্ধনা সভায় আসার জন্য দাদাঠাকুর শরৎচন্দ্ৰ পণ্ডিতকে নিমন্ত্রণ করলেন ব্ৰতচারীর প্রবর্তক গুরুসদয় দত্ত। লাটসাহেবের পার্সেনাল সেক্রেটারি গুরলে গেটে দাঁড়িয়ে নিমন্ত্রণের কার্ড পরীক্ষা করে অতিথিদের ঢুকতে দিচ্ছেন। পায়ে জুতো নেই, পরণে ধুতি-চাদর, এই ভাবে দাদাঠাকুর এলেন। হাতে...
হোজ্জা একবার উটের গাড়িতে চড়েছেন মাত্র। গাড়িচালক হোজ্জার কাছে ভাড়া চাইল। শুনে হোজ্জা হুড়মুড় করে গাড়ি থেকে নেমে যেতে উদ্যত হলেন। চালক বাধা দিয়ে বলল, ‘ভাড়া না দিয়ে আপনি যাচ্ছেন কোথায়?’ ‘আমি হলাম বাদশার খাস বন্ধু। আমার কাছে তুমি ভাড়া...
এক পাড় মাতাল রাস্তা দিয়ে যেতে যেত গোপালের বাড়ির রোয়াকে বসে হেড়ে গলায় গান জুড়ে দিল। গোপাল তার ছেলেদের ডেকে বললে, বেটাকে বেধে ঘা কতক দে তো। এপাধা নি ব্যাটাকে দে প্যাদানি। মাতাল ফিক করে হেসে বলল কি বাওয়া। তোমারও...
রেস্টুরেন্টে পরিচয় হলো রিমা আর সোহাগের। তারা দুজন একসঙ্গে চা খেল, খানিক গল্পগুজব করল, মোবাইল নম্বর নিল…এবং আধঘণ্টার মাথায় সোহাগ রিমাকে প্রেম নিবেদন করে বসল। বলল, ‘আপনি কি আমাকে বিয়ে করবেন?’ বিস্মিত রিমা বলল, ‘আমাদের পরিচয়ের এক ঘণ্টাও হয়নি। আপনি...
উকিল সাহেবের প্রথম স্ত্রী চলে যাওয়ার পর বাসার কাজের মেয়েকে বিয়ে করেন। বিয়ের কিছুদিন পর এক প্রতিবেশী ভাবী এসে উকিলের বউকে জিজ্ঞেস করে : কেমন লাগছে উকিল সাহেবের নতুন সংসার? মিসেস উকিল উত্তর দিলেন : আফা কুনু তফাৎ ফাই নাই...
লঞ্চে প্রচুর ভীর। এক দম্পতি কোন রকম ডেকে চাদর পেতে চাদর গায়ে দিয়ে শুয়ে পড়েছে। সবাই হয় ঘুমাচ্ছে না হয় ঝিমাচ্ছে। এক সময় যুবতী স্ত্রীটি স্বামীকে কানে কানে ফিসফিস করে বললেন, “এক বেডায় মোর বেলাউজের ভেতর হাত ঢুকাইছে।” উত্তরে স্বামীটি...

হুম…

ছোট্ট মিতু গেছে গোয়েন্দাদের অফিসে। দেয়ালে ‘ওয়ান্টেড’-এর তালিকায় টাঙানো অপরাধীদের ছবি দেখে সে গোয়েন্দা অফিসারকে প্রশ্ন করল, ‘তোমরা কি সত্যিই ওদের গ্রেপ্তার করতে চাও?’ গোয়েন্দা: অবশ্যই। মিতু: তাহলে ছবি তোলার সময়ই আটকে রাখলে না কেন?!     জনস্বার্থে প্রকাশ করা হলো

মাইনে

প্রেমিক: প্রিয়তমা, আমি যে কটা টাকা মাইনে পাই, বিয়ের পর তাতে কি তোমার চলবে? প্রেমিকা: আমার তো চলে যাবে। কিন্তু তুমি চলবে কীভাবে?   জনস্বার্থে প্রকাশ করা হলো  
বাদশাহ আকবর একবার তাঁর দরবারে সভাসদবৃন্দদের ভোজ খাইয়ে ছিলেন৷ আকবর বীরবলকে খুব ভালবাসতেন৷ তিনি খুব যত্ন করে বীরবলকে খাওয়ান৷ যখন বীরবল অত্যাধিক খেয়ে বিরক্ত হয়ে গেলেন তখন তিনি আকবরকে বললেন আমার পেটে জায়্গা নেই৷ আমি আর খেতে পারব না৷...
বিখ্যাত গোয়েন্দা শার্লক হোমস ও তাঁর সহকারী ওয়াটসন একটা বেলুনে চেপে উড়ে বেড়াচ্ছিলেন। উড়তে উড়তে চলে যাচ্ছিলেন এক দেশ থেকে আরেক দেশে। নিজেদের অবস্থান বুঝতে না পেরে শার্লক বেলুন থেকেই চিৎকার করে এক লোককে ডাকলেন, ‘এই যে শুনছেন, আমরা এখন...
গোয়েন্দাপ্রধান: চোরাকারবারিদের অনুসরণ করে তুমি কি হোটেল সুপার স্টারে গিয়েছিলে? গোয়েন্দা সহকারী: অবশ্যই, স্যার! গোয়েন্দাপ্রধান: ওরা তোমাকে চিনে ফেলেনি তো? গোয়েন্দা সহকারী: অসম্ভব, স্যার। আমি ছদ্মবেশ নিয়ে হোটেলের ভেতরে ঢুকে গেছি। গোয়েন্দাপ্রধান: কিসের ছদ্মবেশে গিয়েছিলে? গোয়েন্দা সহকারী: স্যার, ভিক্ষুকের ছদ্মবেশে। গোয়েন্দাপ্রধান: কী?! হোটেল সুপার স্টারের...
সেদিন বড় গঞ্জের হাটবার। সকলকে সেই হাটেবাজার করতে যেতে হয়। গোপাল গঞ্জের বাজারে চলেছে গ্রামের কয়েকজন চেনাজানা লোকের সঙ্গে গল্প করতে করতে। যেতে যেতে হঠাৎ গোপালের নজরে পড়ে, সামনে একটি মেয়েও যাচ্ছে বোঝা মাথায় নিয়ে। গোপাল ভালভাবে নজর দিয়ে...
প্রখ্যাত সংগীতশিল্পী বিমলভূষণের সঙ্গে দাদাঠাকুর শরৎচন্দ্ৰ পণ্ডিতের দেখা হতে বিমলভূষণ জিগ্যেস করলেন, দাদাঠাকুর, বলুন কেমন আছেন? চলেছেন কোথায়? দাদাঠাকুর রসিকতা করে বলেন, ভায়া, ঠাকুরের একটা কু। আর কুকুরের দুটো কু। মনে রাখবেন দুটোই কিন্তু পথে পথে ঘোরে। এবার বুঝুন কেমন...
গোয়াবাগানে সাংবাদিক হেমেন্দ্ৰপ্ৰসাদ ঘোষের বাড়ির দোতলায় লাইব্রেরি ঘর। হেমেন্দ্ৰপ্ৰসাদ সেই ঘরে বসে কাজ করেন। লোকজন এলে সেই ঘরেই কথাবাৰ্ত্তা বলেন। হেমেন্দ্ৰপ্ৰসাদের বাড়িতে কুকুর আছে। কেউ এলেই কুকুরটা ডাকাডাকি করে। দাদাঠাকুর শরৎচন্দ্ৰ পণ্ডিত হেমেন্দ্ৰপ্ৰসাদের বাড়ির নিচে এসে হাঁক পাড়তেই কুকুরটা...
এক সেরেস্তাদারের সঙ্গে দেখা করতে দাদাঠাকুর শরৎচন্দ্ৰ পণ্ডিত একবার আদালতে গেছেন। তাঁকে আদালতে আসতে দেখেই উকিল, মুহুরি, মোক্তাররা এগিয়ে এসে বললেন, ঠাকুরমশাই, আপনার কেস আমি এক্ষুনি করে দিচ্ছি,আসুন। ভিড়ের চাপে দাদাঠাকুর এগোতেই পারেন না। তখন বুদ্ধিখাটিয়ে বলেন, আমি কন্যাদায়গ্ৰস্ত...
হোজ্জার এক প্রতিবেশী শিকারে গিয়ে নেকড়ের কবল থেকে এক ভেড়াকে বাঁচিয়ে বাড়ি নিয়ে আসে, পালবে বলে। শিকারির যত্নে ভেড়াটি দিন দিন নাদুস-নুদুস হয়ে উঠল। একদিন শিকারির লোভ হলো ভেড়ার মাংস খাওয়ার জন্য। তাই জবাই করতে উদ্যত হতেই ভেড়াটি ভয়ে...
খতেগঞ্জের এক জমিদার, তাঁর বড় সখ, গোপাল ভাঁড়ের মত তার সভাতেও এমনই একটি ভাঁড় রাখেন। কিন্তু মনে মত ভাঁড় আর তিনি পান না। একদিন গোপালকে ডেকে বললেন, বাপু গোপাল। তুমিই একটা লোক আমায় বাজিয়ে দেখে দাও- যেন মোটামটি তোমার...
একের পর এক প্রচণ্ড গতির বলে ধরাশায়ী হচ্ছিলেন ব্যাটসম্যান, সর্দারজি। একটা বল বেচারার মুখে লাগে, তো আরেকটা লাগে বুকে। একটা মাথায়, আরেকটা পেটে। মার খেয়ে খেয়ে একসময় কোনোমতে আউট হয়ে জান বাঁচালেন তিনি। খেলা শেষে সর্দারজিকে দেখা গেল, পিচের ওপর...
গ্রীষ্মের ছুটিতে কটা দিন নিরিবিলিতে কাটাবেন বলে বনের ভেতর একটা হোটেলে উঠলেন সরদারজি। দেখা গেল, দুদিন হোটেলে থেকেই বাক্সপেটরা নিয়ে বাড়ির পথ ধরেছেন তিনি। ছুটে এল হোটেল ম্যানেজার, ‘স্যার, আপনার তো এক সপ্তাহ থাকার কথা। আগেই চলে যাচ্ছেন যে? আমাদের...
একদিন এক কৃষকের বাড়িতে হানা দিলেন এক গোয়েন্দা। সহজ সরল কৃষককে ধমক দিয়ে গোয়েন্দা বললেন, ‘সরে দাঁড়াও, আজ তোমার বাড়িতে তল্লাশি করব!’ কৃষক বললেন, ‘তল্লাশি করতে চান, করুন স্যার। কিন্তু দয়া করে বাড়ির উত্তর দিকের মাঠটাতে যাবেন না।’ গোয়েন্দা কৃষকের নাকের...
হোজ্জা তাঁর বন্ধুকে চিঠি লিখছিলেন। একজন উৎসুক প্রতিবেশী চুপিচুপি হোজ্জার পেছনে এসে চিঠিতে কী লেখা হচ্ছে, তা পড়তে থাকে। এদিকে হোজ্জার সামনে ছিল একটা আয়না। ওই আয়নাতেই হোজ্জা লোকটাকে দেখতে পেলেন। তিনি পুরো ব্যাপারটা পাত্তা না দিয়ে চিঠি লিখতে লাগলেন:...
শার্লক হোমস: আপনার স্ত্রীর সঙ্গে ঝগড়া হয়েছে, তাই না? মক্কেল: হুঁ। শার্লক হোমস: আপনি ডাক্তারের কাছে যাচ্ছেন, তাই তো? মক্কেল: হুঁ! কিন্তু আপনি এত কিছু বুঝলেন কী করে? শার্লক হোমস: কারণ, আপনার মাথায় ভাঙা ফুলদানির টুকরা দেখা যাচ্ছে!     জনস্বার্থে প্রকাশ করা হলো
গদা: আচ্ছা পদা, বলতো গোয়েন্দারা সাধারণত প্রেম-ভালোবাসা-বিয়ে থেকে দূরে থাকে কেন? পদা: নারী চরিত্র বেজায় জটিল, কিছুই বুঝতে পারবে না।   জনস্বার্থে প্রকাশ করা হলো      
দাদাঠাকুর শরৎচন্দ্ৰ পণ্ডিত জঙ্গিপুর সংবাদ ও বিদূষক নামে দুটি সাময়িকপত্ৰ সম্পাদনা করতেন। তার নিজের ছাপাখানা ছিল। তার নাম পণ্ডিত প্রেস। নিজের প্রেস সম্পর্কে দাদাঠাকুর বলতেন, আমার ছাপাখানা হালফ্যাশানি ছাপাখানা নয়। আমার ছাপাখানায় আমিই প্রোপাইটার্‌ আমি কম্বোজিটার, আমি প্রািফরিডার, আমিই...
গোপালের পাশের এক প্রতিবেশীর নাম কেদার। তার বাড়ির উঠানে কাঁঠাল গাছ ছিল। গাছটিতে প্রতি বছর বেশ বড় বড় কাঁঠাল হত। খেতে মধুর মত মিষ্টি। কিন্তু একটা কাঁঠালও সে কাউকে দিত না। গাছে একটি কাঠাঁল পাকলে তার গন্ধে পাড়া মাত...
হোজ্জা একবার উটের গাড়িতে চড়েছেন মাত্র। গাড়িচালক হোজ্জার কাছে ভাড়া চাইল। শুনে হোজ্জা হুড়মুড় করে গাড়ি থেকে নেমে যেতে উদ্যত হলেন। চালক বাধা দিয়ে বলল, ‘ভাড়া না দিয়ে আপনি যাচ্ছেন কোথায়?’ ‘আমি হলাম বাদশার খাস বন্ধু। আমার কাছে তুমি ভাড়া...
image_pdfimage_print
Translate »
error: Content is protected !!