গত ডিসেম্বরের শেষদিকে চীন থেকে করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার পরে এ পর্যন্ত বিশ্বব্যাপী মোট ৯ লাখ ২৯ হাজার ৩৯১ জনের মৃত্যু হয়েছে। সরকারী সূত্র থেকে প্রাপ্ত হিসাব সমন্বয় করে মঙ্গলবার (গ্রীনিচ মান সময় ১১০০) এএফপি এ কথা জানায়।

এ পর্যন্ত নিবন্ধিত করোনা আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ২ কোটি ৯৩ লাখ ২৯ হাজার ৩৯০ জন, এদের মধ্যে করোনা থেকে মুক্ত হয়েছে ১ কোটি ৯৫ লাখ ৩৬ হাজার ৯০০ জন।

ডবভিন্ন দেশের সরকারী সূত্র এবং বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও) থেকে প্রাপ্ত তথ্য সমন্বয় করে এএফপি এই হিসাব তৈরি করেছে, তবে এই হিসাবে প্রকৃত আক্রান্তের সংখ্যার অংশ মাত্র প্রতিফলিত হয়েছে। অনেক দেশে কেবল উপসর্গ দেখে অথবা গুরুতর আক্রান্ত হলেই কেবল টেস্ট করা হয়।

সোমবার বিশ্বব্যাপী নতুন করে ৪ হাজার ৪৩৩ জন মারা গেছে এবং ২ লাখ ৬৯ হাজার ৩৫২ জন আক্রান্ত হয়েছে। মৃতদের সংখ্যার মধ্যে ভারতে ১ হাজার ৫৪ জন, যুক্তরাষ্ট্রে ৪১০ জন এবং ব্রাজিলের ৩৮১ জন রয়েছে।

করোনায় সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত যুক্তরাষ্ট্রে ১ লাখ ৯৪ হাজার ৫৪৫ জন মারা গেছে, আক্রান্ত হয়েছে ৬৫ লাখ ৫৫ হাজার ২৪৩ জন, এদের মধ্যে করোনামুক্ত হয়েছে ২৪ লাখ ৭৪ হাজার ৫৭০ জন।

যুক্তরাষ্ট্রের পরে সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত ব্রাজিলে ১ লাখ ৩২ হাজার ৬ জন মারা গেছে, আক্রান্ত হয়েছে ৪৩ লাখ ৪৫ হাজার ৬১০ জন। যুক্তরাজ্যে করোনায় মারা গেছে ৪১ হাজার ৬৩৭ জন, আক্রান্ত হয়েছে ৩ লাখ ৭১ হাজার ১২৫ জন।

জনসংখ্যার অনুপাতে সবচেয়ে বেশী মৃত্যু হয়েছে পেরুতে। দেশটিতে প্রতি এক লাখে ৯৩ জন মারা গেছে, এরপরেই বেলজিয়ামে ৮৬ জন, স্পেনে ৬৪ জন, বলিভিয়ায় ৬৩ জন এবং চিলিতে ৬৩ জন মারা গেছে।

হংকং ও ম্যাকাও বাদে চীনে ঘোষিত আক্রান্তের সংখ্যা ৮৫ হাজার ২০২ জন, মৃত্যু ৪ হাজার ৬৩৪ জন এবং করোনামুক্ত হয়েছে ৮০ হাজার ৪২৬ জন।

লাতিন আমেরিকা ও ক্যারিবিয়ান অঞ্চলে রেকর্ড ৩ লাখ ১২ হাজার ৭১ জন মারা গেছে, আক্রান্ত হয়েছে ৮৩ লাখ ৩০ হাজার ২৪৩ জন; ইউরোপে মারা গেছে ২ লাখ ২২ হাজার ১৬ জন, আক্রান্ত হয়েছে ৪৫ লাখ ৬০ হাজার ৪৩৪ জন।

এশিয়ায় ১ লাখ ১৭ হাজার ৪৩৬ জনের মৃত্যু হয়েছে, আক্রান্ত হয়েছে ৬৬ লাখ ৪৮ হাজার ২৩৬ জন; মধ্যপ্রাচ্যে ৪০ হাজার ৪৪৩ জনের মৃত্যু হয়েছে,আক্রান্ত হয়েছে ১৭ লাখ ৫ হাজার ৩৫ জন; আফ্রিকায় ৩২ হাজার ৭৯৩ জনের মৃত্যু হয়েছে, আক্রান্ত হয়েছে ১৩ লাখ ৬২ হাজার ২৮০ জন।

 

 

 

 

 

 

বাসস

প্রতিবেদনটি জনস্বার্থে প্রকাশ করা হলো

image_pdfimage_print