এক নোয়াখাইল্লা ভুলবশত অন্য এক নাম্বারে রিচার্জ করে ফেললো , যখন সে নিজের ভূল বুঝতে পারলো তখন সে ওই নম্বরে অনেকবার ফোন করলো . . .কিন্তু ওই নম্বরের লোকটা ছিল বরিশালের, বেশ চতুর – মাগনা রিচার্জ পেয়ে সে তো মহা খুশী . . তাই সে নোয়াখাইল্লার বোকামী বুঝতে পেরে অচেনা নম্বরের ফোন আর ধরলোনা। তখন নোয়াখাইল্লা বরিশাইল্লারে মেসেজ দিল : “লস্কর-ই-তৈয়বায় আপনাকে স্বাগতম ! আপনি আমাদের রিচার্জ স্বীকার করে আজ থেকে নব্য তালিবানের সদস্য হয়ে গেছেন ! জনাব, সতর্ক থাকবেন – ডিবি এজেন্টরা আমাদের উপর কড়া নজর রাখছে, আপনার ফোন খুব সাবধানে ব্যবহার করবেন, কোন অচেনা নম্বরের কারো সাথে কথা বলবেন না । তবে আমার নম্বরটি সেভ করুন – না’রে তকবীর . . . “ঘাবড়ে গিয়ে বরিশাইল্লাডা সাথে সাথে নোয়াখাইল্লারে ফোন করে বললো :”মোরে সদস্য বানাইতে তোমারে কইছে কেডা? মোরে বেকুব পাইছো? মুইকি তোমার দ্বারে টাহা চাইছি, না মোর চইদ্দ গুষ্টিতে কেউ তোমগোর সদস্য আছে ! “নোয়াখাইল্লা তখন বলল -” আপনি যেহেতু না’রাজ তাহলে রিচার্জ ফিরিয়ে দিন সদস্যপদ অটোমেটিক বাতিল হয়ে যাবে ! “কল শেষ হবার ৫ মিনিটের মধ্যে নোয়াখাইল্লার মোবাইলে রিচার্জ ফেরত আসলো . . .নোয়াখাইল্লা এবার আবার ম্যাসেজ পাঠালো “ও মনু, বেকুব মুই না তুমি ? ”

জনস্বার্থে প্রকাশ করা হলো

image_pdfimage_print