ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোহাম্মাদ জাওয়াদ জারিফ

ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোহাম্মাদ জাওয়াদ জারিফ তার দেশের সঙ্গে ছয় জাতিগোষ্ঠীর স্বাক্ষরিত পরমাণু সমঝোতার ব্যাপারে তিন ইউরোপীয় দেশের আচরণের তীব্র সমালোচনা করে বলেছেন, ফ্রান্স, ব্রিটেন ও জার্মানি আমেরিকাকে কুর্নিশ করে এই সমঝোতা টিকিয়ে রাখতে পারবে না।

তিনি নিজের অফিসিয়াল টুইটার পেজে সোমবার রাতে লিখেছেন, টানা ২০ মাস ধরে পরমাণু সমঝোতায় স্বাক্ষরকারী তিন ইউরোপীয় দেশ আমেরিকার আধিপত্যকামী নীতির সামনে নতজানু অবস্থান গ্রহণ করার কারণে এই সমঝোতা আজকের অবস্থায় এসে দাঁড়িয়েছে।

তিনি আরো বলেন, ফ্রান্স, ব্রিটেন ও জার্মানির পক্ষে এখনো পরমাণু সমঝোতাকে ধ্বংসের হাত থেকে রক্ষা করা সম্ভব। কিন্তু তা করতে হলে তাদেরকে আমেরিকার সামনে নতজানু হওয়ার পরিবর্তে সাহস করে ওই সমঝোতায় নিজেদের দেয়া প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়ন করতে হবে।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ২০১৮ সালের ৮ মে ইরানের পরমাণু সমঝোতা থেকে তার দেশকে বের করে নিয়ে তেহরানের ওপর কঠোর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেন। আন্তর্জাতিক অঙ্গনে ট্রাম্পের এ পদক্ষেপের বিরুদ্ধে তীব্র প্রতিক্রিয়া হয়। আমেরিকাকে ছাড়াই পরমাণু সমঝোতা রক্ষা করার প্রতিশ্রুতি দেয় এতে স্বাক্ষরকারী তিন ইউরোপীয় দেশ জার্মানি, ব্রিটেন ও ফ্রান্স। ওই তিন দেশ আমেরিকার রাজনৈতিক চাপের কাছে নতি স্বীকার না করলেও পরমাণু সমঝোতা থেকে ইরানের যে আর্থিক সুবিধা পাওয়ার কথা ছিল তা তেহরানকে দিতে চরমভাবে ব্যর্থ হয়।

এর পরিপ্রেক্ষিতে ইরান ২০১৯ সালের ৮ মে পরমাণু সমঝোতার ২৬ ও ৩৬ নম্বর ধারা অনুযায়ী এটিতে নিজের দেয়া কিছু প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়ন স্থগিত রাখে। প্রতি দুই মাস অন্তর এভাবে প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়ন স্থগিত রাখার পর গত ৫ জানুয়ারি তেহরান পঞ্চম ও সর্বশেষবারের মতো এ পদক্ষেপ নেয়। ইরান ঘোষণা করে, দেশটি এখন থেকে পরমাণু সমঝোতার বাধ্যবাধকাগুলো মেনে চলবে না। তবে তেহরান পরমাণু সমেঝাতা রক্ষা করবে এবং ইউরোপীয়রা তাদের কথা রাখলে তেহরান এ সমঝোতার ভিত্তিতে নিজের প্রতিশ্রুতিগুলো আবার বাস্তবায়ন করা শুরু করবে।

 

 

 

পার্সটুডে/এমএমআই

প্রতিবেদনটি জনস্বার্থে প্রকাশ করা হলো

image_pdfimage_print